যুবক অনার্য

যুবক অনার্য‘র দুটি কবিতা

স্বাধীনতা, এই শব্দটি যেভাবে আমাদের হলো   ধানমণ্ডি  ৩২। দুইটি ছায়া দাঁড়িয়ে – মুখোমুখি।   প্রথম ছায়া: সিরাজ, আগামীকাল নারায়ণগঞ্জ মিটিং থেকে ওরা আমাকে গ্রেফতার করবে এবং নিয়ে যাবে কয়েদিখানায় তুই কিন্তু কাজ থামিয়ে দিস না তোরাই তো বাঙালির ভবিষ্যৎ এইবেলা ওরা আমাকে হয়তো জামিনও দেবে না।   প্রথম ছায়া দ্বিতীয়  ছায়ার কাছে ১৫০০ টাকা […]

বিস্তারিত...
যুবক অনার্য

যুবক অনার্য’র কবিতা

তাহারা আমি তার কাছে গেলাম। বলা যায়, তার সান্নিধ্যে গেলাম দেখলাম- তিনি সদালাপী ধ্যানমগ্ন কখনো গম্ভীর এলোমেলো উশৃঙ্খল বোহেমিয়ান। তিনি এক বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারক কিংবা কবি। চিত্রশিল্পী হয়তো-বা। নিজের সম্পর্কে বলতে পছন্দ করেন- যেহেতু কবি, তিনি তাই বোহেমিয়ান সন্ন্যাসী যাযাবর… মাটি মদ মাংস আর অনন্ত প্রহর…   অনেকটা আলোছায়া, তার সঙ্গে কেটে গ্যালো অনেকটা বছর বুঝে […]

বিস্তারিত...
আলমগীর রেজা চৌধুরী

আলমগীর রেজা চৌধুরী’র কবিতা

হরিসাধন হরিসাধন, হরিসাধন- ডাক দেয়। বনভূমির সন্তান। হামাগুড়ি দিয়ে গজারির মাথায় ঝুলে থাকে পঞ্চমীর চাঁদ। জল কলকল কে গায় কষ্টস্রাব। বংশাই, মধুপুর, সাগরদীঘি, বৃন্দাবনের তমাল চূড়ায় রাধা-গীতিকায় মাতম করে কৃষ্ণভক্ত ভরত দম্পতি। মহাকালের কিন্নর-কিন্নরী। ওই তো অশ্বারোহী, ধাবমান পর্যটক বতুতা। রাজ্যলোভী ঈগল রক্তাক্ত করে শ্যামলভূমি। তুমি সন্মুখে এসো না। কাস্তে হাতে দাঁড়িয়ে আছে দীপ্ত বঙ্গসন্তান।

বিস্তারিত...

সমুদ্র ও সরাইখানা

তুষার কবির মাঝরাতে সমুদ্র আর সরাইখানাকে আমার কাছে একই বলে মনে হয়—একই রকম কলরব, একই রকম গান ও ঘ্রাণ, একই রকম ঢেউ! সমুদ্রের উপচানো ফেনাকে মনে হয় গেলাসে গেলাসে জমা তরল আরক! এক সমুদ্রসারস ধীর লয়ে ডানা মেলে উড়ে যায় মাস্তুলের ফুঁসে ওঠা গ্রীবা চিরে—নীল জলরাশি ছুঁয়ে তার রৌদ্রঘ্রাণ যেনবা আছ্ড়ে পড়ে মর্চে পড়া ডকইয়ার্ডের […]

বিস্তারিত...