টেস্টে ভারতীয় বোলার

লর্ডস টেস্ট : শেষ ঘণ্টায় দুর্দান্ত জয় ভারতের

খেলাধুলা লিড স্টোরি

ক্রীড়া প্রতিবেদক

রোমাঞ্চ, উত্তেজনা। টেস্ট ক্রিকেটের সৌন্দর্যের সাথে আসলে আর কিছুর তুলনা হয় না। লর্ডসে সেই সৌন্দর্য দর্শকদের মোহগ্রস্থ করে রাখল ভারত-ইংল্যান্ড টেস্টে। দারুণ লড়াইয়ের পর শেষ ঘণ্টায় দুর্দান্ত এক জয় তুলে নিল বিরাট কোহলির ভারত। ১৫১ রানের জয়ে পাঁচ ম্যাচ সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল তারা।

দিনের খেলা তখন মাত্র ৮ ওভারের মতো বাকি। ভারতের দরকার ১ উইকেট। ইংল্যান্ডের শেষ জুটি জেমস অ্যান্ডারসন আর মার্ক উড কি পারবেন দলকে বাঁচাতে? মাত্র কয়েকটা ওভার, অসম্ভব ছিল না। তবে মোহাম্মদ সিরাজ ইংলিশদের সেই স্বপ্ন পূরণ হতে দিলেন না। দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে ভেঙে দিলেন অ্যান্ডারসনের স্ট্যাম্প। কোহলি এন্ড কোং মাতল বাঁধভাঙা উল্লাসে।

প্রথম ইনিংসে লোকেশ রাহুলের ১২৯ আর রোহিত শর্মার ৮৩ রানে ভর করে ৩৬৪ রান করেছিল ভারত। জবাবে জো রুটের হার না মানা ১৮০ রানের মহাকাব্যিক ইনিংসে ৩৯১ রানের পুঁজি পায় ইংল্যান্ড।

প্রথম ইনিংসে লিড পাওয়া ইংলিশরা জয়ের সুবাস পাচ্ছিল ১৯৪ রানে ভারতের ৭ উইকেট তুলে নিয়ে। ২০৯ রানে অষ্টম উইকেটও হারিয়ে ফেলে কোহলির দল।

কিন্তু পঞ্চম দিনের প্রথম সেশনে এসে ম্যাচ ঘুরিয়ে দেন লোয়ার অর্ডারের জাসপ্রিত বুমরাহ আর মোহাম্মদ শামি। ২০ ওভারের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে গুরুত্বপূর্ণ ৮৯ রান যোগ করেন তারা। ফলে হারের শঙ্কায় থাকা ভারত উল্টো ইংল্যান্ডকে ছুড়ে দেয় ২৭২ রানের জয়ের লক্ষ্য। দিনের খেলা তখন বাকি ৬০ ওভারের মত।

এই ৬০ ওভারও ইংল্যান্ড টিকতে পারবে কি না, সেই শঙ্কা তৈরি হয় শুরু থেকেই। দলের বোর্ডে মাত্র ১ রান উঠতেই ইংলিশরা হারিয়ে বসে দুই ওপেনার ররি বার্নস আর ডম সিবলি। বার্নস বুমরাহ আর সিবলি শিকার হন শামির।

এরপর ড্র মাথায় রেখে বল খেতে থাকা হাসিব হামিদও ৯ রানের বেশি করতে পারেননি, ৪৫ বল খেলে এলবিডব্লিউ হন ইশান্ত শর্মার বলে। ২৪ বলে ২ করা জনি বেয়ারস্টোকেও চা-বিরতির আগের ওভারে একইভাবে ফেরান ভারতীয় এই পেসার। ৬৭ রানে ৪ উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় সেশন শেষ করে ইংল্যান্ড।

জো রুট বরাবরের মতো হাল ধরে ছিলেন। কিন্তু বিরতির ঠিক পর ইংলিশ অধিনায়ককেও তুলে নেন বুমরাহ। তার দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে এজ হয়ে প্রথম স্লিপে কোহলির ক্যাচ হন রুট (৬০ বলে ৩৩)। তখনই মোটামুটি ম্যাচটা হেলে পড়েছে ভারতের দিকে।

দিনের খেলা তখনও ২৮ ওভারের মতো বাকি আছে। জস বাটলার (৯৬ বলে ২৫) মাটি কামড়ে পড়ে থাকার চেষ্টা করলেও দলকে শেষ পর্যন্ত রক্ষা করতে পারেননি। তাকে আউট করার ওভারেই শেষ উইকেটটিও তুলে নেন সিরাজ। ইংলিশরা দ্বিতীয় ইনিংসে অলআউট হয় ১২০ রানেই।

ম্যাচে ভারতীয় বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে সফল সিরাজই। প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও সমান ৪ উইকেট নিয়েছেন ডানহাতি এই পেসার। জাসপ্রিত বুমরাহ ৩টি আর ইশান্ত শর্মার শিকার ২ উইকেট।