বিজয় দিবস

বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী : মাথা না নোয়ানো বাংলাদেশ

সম্পাদকীয়

বাংলাদেশ তার স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করছে। একই সঙ্গে জাতি উদযাপন করছে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের স্থপতি ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী। আজ মহান বিজয় দিবসের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আমরা সবাইকে রক্তিম শুভেচ্ছা জানাই। এ উপলক্ষে গত অর্ধ-শতকে যা কিছু মহৎ অর্জন, তা নিয়ে যেমন সামনে এগিয়ে যেতে বলি; তেমনই যেসব আঁধার জাতির জীবনে এসেছিল, সেগুলো পেছনে ফেলে যেতে বলি। একটি জাতির জীবনে ৫০ বছর কম, না বেশি- তা নিয়ে বিতর্ক হতে পারে। কিন্তু এ ব্যাপারে সন্দেহ নেই যে, একটি পরিণত রাষ্ট্রব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার এখনই সময়।

মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে এক সাগর রক্তের বিনিময়ে আমরা যে স্বাধীনতা পেয়েছি; বিজয় দিবস তার পূর্ণতার স্মারক। সুমহান বিজয়ের এই দিনে আমরা গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করি শহীদ, মুক্তিযোদ্ধা, বীরাঙ্গনা, শরণার্থীসহ মুক্তিকামী সব মানুষকে। যাদের আত্মত্যাগ ও স্বজন হারানোর বেদনার মধ্য দিয়ে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ পেয়েছি, আমরা তাদের ভুলতে পারি না। আমরা গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করি স্বাধীনতার মহানায়ক, আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতাসহ মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব ও সংগঠকদের। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে মুক্তিবাহিনীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে যেসব ভারতীয় সেনা এই মাটিতে জীবন দিয়েছেন; রক্ত ঝরিয়েছেন, তাদের প্রতিও আমাদের বিনম্র শ্রদ্ধা।

আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিকভাবেও বাংলাদেশ এখন আগের যে কোনো সময়ের তুলনায় শক্তিশালী। মুক্তিযুদ্ধের সময় আমরা প্রতিবেশী দেশে শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় নিয়েছিলাম; আর এখন বাংলাদেশই হয়ে উঠছে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আশ্রয়। সামাজিক ও অর্থনৈতিক সূচকে দক্ষিণ এশিয়ার অনেক দেশের তুলনায় আমরা এগিয়ে রয়েছি। প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায়ও বাংলাদেশ এখন বিশ্বের জন্য অনুসরণীয়। একই সঙ্গে স্মরণ করতে হবে- গণতন্ত্র ও সুশাসনের যে অঙ্গীকার নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, তা এখনও অধরা। স্বাধীনতার আনুষ্ঠানিক ঘোষণাপত্রে উল্লিখিত সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও ন্যায়বিচার এখনও সব নাগরিকের জন্য নিশ্চিত করা সম্ভব হয়নি।

মহান বিজয় দিবসে আমাদের অঙ্গীকার হোক- গণতন্ত্র, সুশাসন, নাগরিক অধিকার নিশ্চিতকরণ। অর্থনৈতিক সক্ষমতার সঙ্গে সামাজিক ও রাজনৈতিক উৎকর্ষও সাধিত হোক। বিজয় দিবস মনে করিয়ে দেয়- আমরা মাথা না নোয়ানো জাতি। রাজনৈতিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রের নেতিবাচক শক্তিগুলো মোকাবিলাতেও সেই পরিচয় সমুন্নত থাকুক।